বরিশালে প্রার্থী ঠিক হয়নি কোনো দলেই

প্রকাশ : ৩০ মে ২০১৮, ১২:২৮

জাগরণীয়া ডেস্ক

আগামী ৩০ জুলাই বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মঙ্গলবার (২৯ মে) নির্বাচন কমিশন এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সিটি নির্বাচন ঘোষণা হওয়ার পরে কোন দলই এখনও তাদের প্রার্থী মনোনয়নের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি।

এ সম্ভাবনা সামনে রেখে নানামুখী প্রচারণায় ব্যস্ত ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য একাধিক প্রার্থী। অপরদিকে প্রকাশ্য প্রচারণা না থাকলেও কৌশলে নির্বাচনকেন্দ্রিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন বিরোধী জোটের প্রধান বিএনপির একাধিক প্রার্থী।  প্রধান দুই দল এখনো তাদের প্রার্থী চূড়ান্ত করতে পারেনি। এতে উভয় দলে নির্বাচনের সময় বিদ্রোহ দেখা দিতে পারে।  জাতীয় পার্টিসহ অন্যান্য ছোট দল এ নির্বাচনে প্রার্থী না দিলেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার কথা জানিয়েছে কমিউনিস্ট পার্টি। তবে শুধু দল নয়, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ভোটাররা প্রার্থীর সততা, যোগ্যতা ও গুণাগুণ বিবেচনায় চূড়ান্ত রায় দেবে বলে প্রত্যাশা নাগরিক সমাজের।

বরিশাল জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা হেলালউদ্দিন অবশ্য বলেছেন, ৩০ জুলাই বিসিসি নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যাপারে তারা এখনও দাফতরিক নির্দেশনা পাননি।

তবে নির্বাচন কমিশনের উপ-সচিব ফরহাদ হোসেন জানান, মঙ্গলবার নির্বাচন ভবনে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে বরিশাল, রাজশাহী ও সিলেট সিটি করপোরেশনের নির্বাচন আগামী ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ বিষয়ে প্রযোজ্য তফসিল ১৩ জুন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যকর হবে। প্রতীক বরাদ্দের আগ পর্যন্ত কোনও প্রার্থী নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নিতে পারবেন না।

ফরহাদ হোসেন জানান, নির্বাচন কমিশনের মঙ্গলবারের বৈঠকে নেওয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১৩ থেকে ২৮ জুন মনোনয়নপত্র জমা, ১ ও ২ জুলাই মনোনয়নপত্র বাছাই, ৩ থেকে ৫ জুলাই আপিল, ৬ থেকে ৮ জুলাই আপিলের নিষ্পত্তি, ৯ জুলাই মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার এবং ১০ জুলাই প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে।

নারীদের জন্য সংরক্ষিত ১০টি এবং ৩০টি সাধারণ ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত বরিশাল সিটি করপোরেশনের আয়তন ৫৮ বর্গ কিলোমিটার। ৫ লাখ নাগরিকের বাস এই নগরীতে। নির্বাচন অফিস প্রকাশিত চূড়ান্ত ভোটার তালিকা অনুসারে বরিশাল সিটি করপোরেশন এলাকায় ভোটার ২ লাখ ৪৪ হাজার ১০২ জন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত